রাজারহাটে কৃষকের ধানের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে উন্মুক্ত লটারি

রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি :

চলতি বোরো মৌসুম সবেমাত্র শেষ হয়েছে। ক’দিন আগেও মাঠে মাঠে দোল খাচ্ছিল সোনালী ধান। ধান কাটার মহা উৎসবে মেতে উঠেছিল কৃষক পরিবার। বাড়ির উঠান গুলো কৃষাণ/কৃষাণিদের পদভারে মুখরিত ছিল।

গত তিন বছরের টানা বাম্পার ফলনের পর এ বছরেও ধানের বাম্পার ফলনে কৃষক স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে। দামটাও একটু বেশি। ধানের মন প্রতি ১০৪০ টাকা সরকারি ঘোষণায় কৃষকের চোখে মুখে এখন শুধু স্বপ্ন আর স্বপ্ন।

রবিবার (২১ জুন) সরাসরি কৃষকদের নিকট থেকে ন্যায্য মূল্যে বোরো ধান ক্রয়ের লক্ষ্যে বেলা ১১.০০ টায় রাজারহাট উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরে উন্মুক্ত লটারি অনুষ্ঠিত হয়।এ বছর রাজারহাটে বোরো ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে লটারির মাধ্যমে মোট ২১৮৪ জন কৃষক বাছাই করা হয়। এর মধ্যে নীতিমালা অনুযায়ী বড় কৃষক ১৮৬ জন (২০%), মাঝারি কৃষক ৭৪৮ জন (৩০%) এবং ক্ষুদ্র/প্রান্তিক কৃষক ১২৫০ জন (৫০%)। প্রতিজন কৃষক ১ মেট্রিকটন করে ধান দিতে পারবেন।

এ বছর সরকারিভাবে বোরো ধানের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে প্রতি কেজি ২৬ টাকা হিসেবে প্রতি মন ১০৪০ টাকা। চলতি মৌসুমে উন্মুক্ত লটারির মাধ্যমে নির্বাচিত কৃষকদের কাছ থেকে মোট ২১৮৪ মেট্রিক টন ধান ক্রয় করা হবে।

উল্লেখ্য, রাজারহাট উপজেলায় ৭ টি ইউনিয়নে মোট ৩০ হাজার ৭ শত ৭৮ জন তালিকাভুক্ত কৃষকের মধ্য থেকে লটারির মাধ্যমে কৃষক নির্বাচন করা হয় ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহা: যোবায়ের হোসেন , সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোছাঃ আকলিমা বেগম, রাজারহাট উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জনাব মোঃ আশিকুল ইসলাম মন্ডল সাবু, উপজেলা তথ্য কর্মকর্তা সোহেলি মারজান, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ কামরুজ্জামান, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মোঃ আব্দুস ছালাম, ওসি এলএসডি মোঃ মোর্শেদ আলম, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ সজিবুল করিম, সাংবাদিক এসএ বাবলু, এমএ মন্ডল এটম ও উল্লেখযোগ্য সংখ্যক কৃষক।