রাজারহাটে সাংবাদিকদের উপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা

রফিকুল ইসলাম:
পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে রাজারহাটের নাজিমখান এলাকায় যমুনা টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি নাজমুল হোসেনসহ ২ ক্যামেরা পারসনের উপর হামলার প্রতিবাদে ২৪জুন বুধবার দুপুরে প্রেসক্লাব রাজারহাট মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা করেছে।

প্রেসক্লাব রাজারহাটের উদ্যোগে রাজারহাট-কুড়িগ্রাম সড়কের প্রেসক্লাব চত্বরে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভায় প্রেসক্লাবের সভাপতি এসএ বাবলুর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলামের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি সহকারী অধ্যাপক সাজেদুর রহমান মন্ডল চাঁদ, জেলা পরিষদ সদস্য আব্দুস ছালাম, প্রেসক্লাবের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক প্রহলাদ মন্ডল সৈকত, সহ-সভাপতি এম আজিজুল হক, আলতাফ হোসেন সরকার, সাংগঠনিক সম্পাদক প্রভাষক এনামুল হক, কোষাধ্যক্ষ মোঃ এনামুল হক, সিনিয়র সদস্য লুৎফর রহমান আঁশু, সাবেক সাধারণ সম্পাদক আনিছুর রহমান লিটন, আমিনুল ইসলাম, মাহফুজার রহমান মনু, এনামুল হক সরকার, আওয়ামীলীগ নেতা জাহানুর আলম সোহেল, ছাত্রলীগ নেতা রিয়াজুল ইসলাম প্রমূখ। বক্তারা বলেন, সাংবাদিকদের উপর হামলার ঘটনায় পুলিশ ২অভিযুক্তকে আটক করে। কিন্তু ওই ঘটনার মূল অভিযুক্ত ওসি খলিলুর রহমান প্রভাবিত করে নিজেকে মামলা থেকে বাঁচানোর জন্য কৌশল অবলম্বন করে রাতারাতি প্রথম এজাহার থেকে তার নাম বাদ দিয়ে মামলাটি এজাহারভূক্ত করা হয়। এরপর থেকে ওই ওসি প্রভাবশালী হওয়ায় মামলা তুলে নেয়ার জন্য বাদীসহ বাদীর পরিবারকে প্রভাবশালীদেরকে দিয়ে নানাভাবে তদবির চালাচ্ছে। অনতিবিলম্বে মূল অভিযুক্ত ওসি খলিলুর রহমান ওরফে লাভলুকে ওই মামলায় অন্তর্ভূক্ত করে অপর আসামীদের গ্রেফতার করতে জোর দাবী জানান।

মামলার এজাহার পর পর ২দফা পরিবর্তন করে ওসি খলিলুর রহমানের নাম বাদ দিয়ে এজাহার দায়ের করার কথা স্বীকার করে রাজারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ রাজু সরকার বলেন, সাতজনের নাম উল্লেখ পূর্বক অজ্ঞাত ১০/১২জনকে আসামী করা হয়।এর মধ্যে ২জনকে গ্রেফতার করে কুড়িগ্রাম জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। যার মামলা নং-০৮, তাং ২২/০৬/২০২০ইং।